Friday, December 21, 2012

বর্ণবাদী বিজ্ঞাপনের অন্তরদর্শন



০১. সারা পৃথিবীতে ‘টারজান’ চরিত্রটি কমিক্স বই, উপন্যাস, সিনেমা ও কার্টুন ছবিতে প্রায় একশ বছর ধরে দাপটের সঙ্গে নিজস্ব জনপ্রিয়তা ধরে রেখেছে। ছোট বেলায় ’টারজান’ বা তার প্রেমিকা ’জেন’ হতে চায়নি, এমন বালক-বালিকা খুঁজে পাওয়া মুশকিল।

Tuesday, November 27, 2012

আর কতোকাল?


বাতাসে পোড়া লাশের গন্ধ। স্কুলের বারান্দায় সারিবদ্ধ প্রায় একশ মরদেহ সাদা প্লাস্টিকের ব্যাগে। পুড়ে কয়লা হয়ে গেছেন, ক্ষুদ্র আকৃতির হয়ে গেছেন একেকজন শ্রমিক। স্বজনরা তারপরও প্রিয় মুখটি চেনার চেষ্টায় মরিয়া। মন শক্ত করে, নাক-মুখ চেপে একেকটি ব্যাগের চেইন সরিয়ে উঁকি দিচ্ছেন তারা। রাতভর কান্না, আহাজারি, বুক ফাটা আর্তনাদের পর অনেকের চোখেই আর পানিও নেই। শুধু বোবা কান্নার শব্দ, তীব্র বেদনায় দৃষ্টি যেন ভাষাহীন।
 

গত রবিবার আশুলিয়ার নিশ্চিন্তপুর প্রাথমিক বিদ্যালয়ের মাঠে গিয়ে এমনই দৃশ্য দেখা গেছে। আগের দিনই [শনিবার, ২৪ নভেম্বর] পাশের তাজরিন ফ্যাশন গার্মেন্টে জীবন্ত পুড়ে ছাই হয়েছে শতাধিক শ্রমিক। নিহতদের অধিকাংশই নারী। ...

পবিত্র আশুরার ছুটি উপেক্ষা করে তথ্য-সাংবাদিকতার পেশাগত কারণে সকাল নয়টা নাগাদ পৌঁছানো গেছে ঘটনাস্থলে। একেবারে ঘটনাস্থল থেকে প্রত্যক্ষদর্শন না করলে সে বেদনার তীব্রতা বোঝা সত্যিই খুব দুস্কর। স্কুলের মাঠজুড়ে হাজারো শোকার্ত মানুষের ঢল।

Friday, November 23, 2012

রবীন্দ্র চিঠিতে আত্নকথন


[২০০৯ সালের ১৪ ফেব্রুয়ারি নওগাঁর আত্রাইয়ের পতিসরে পাওয়া গেছে কবি রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের ছয় পাতার একটি দীর্ঘ চিঠি। এটিই এ পর্যন্ত পাওয়া কবির সর্বশেষ অপ্রকাশিত পত্র। চিঠিতে তারিখ দেওয়া আছে, ১৩০৭ সালের ২৮ ভাদ্র। কিন্তু সুনির্দষ্টভাবে কারো নাম উল্লেখ করে চিঠিতে কাউকে সম্বোধন করা হয়নি। তাই কবি এই চিঠিটি কাকে লিখেছিলেন, তা এখন গবেষণার বিষয়। রবীন্দ্রনাথের এই অপ্রকাশিত চিঠিটি তাঁর পাচক পতিসরের কবিজ উদ্দিনের বাড়ি থেকে উদ্ধার করা হয়। এতে কবি তুলে ধরেছেন তাঁর সংক্ষিপ্ত জীবন ও কর্মের কথা। নওগাঁর ছোটকাগজ 'অঞ্জলি লহ মোর' এর জানুয়ারি-জুন, ২০০৯ সংখ্যায় কবির চিঠিটির হাতের লেখার ইমেজ প্রকাশিত হয়। চলতি ব্লগপোস্টে প্রকাশিত কবির চিঠিটি সেখান থেকেই নেওয়া। বানানরীতিসহ চিঠির বয়ান অবিকল রাখা হয়েছে।]

Wednesday, October 24, 2012

অন্তর্জালে জ্যোতির্ময় চাকমা ভাষা

বাংলাদেশের দক্ষিণ-পূর্বাংশে পার্বত্য চট্টগ্রামে বসবাস করেন দেশের দ্বিতীয় বৃহত্তম আদিবাসী পাহাড়ি চাঙমা বা চাকমা । তাদের রয়েছে হাজার হাজার বছরের প্রাচীন ঐতিহ্য, রীতি-নীতি ও সংস্কৃতি; সমৃদ্ধশালী উপকথা, লোকগীতি, ছড়া, প্রবাদ-প্রবচন ও সাহিত্য।

বহু বছর ধরে এই ভাষায় লেখা হচ্ছে অসংখ্য কবিতা, গল্প, উপন্যাস, প্রবন্ধ; রাঙামাটির জুম অ্যাস্থেটিক কাউন্সিল (জাক) কয়েক বছর আগে চাকমা ভাষায় মঞ্চ নাটক করে দেখিয়ে দিয়েছে, এই ভাষাতে ভালোমানের নাটক সৃষ্টি করাও সম্ভব।

Friday, October 19, 2012

ভূতেরাই এখন সর্ষের চাষ করছে!

০১. যতোই দিন যাচ্ছে বেরিয়ে আসছে কেঁচো, সাপ এবং অ্যানাকোন্ডা। দৃশ্যত:ই রাঙামাটির সঙ্গে রামু’র সহিংসতার প্রেক্ষাপট ও ধরণ ভিন্ন। আবার দর্শনগত দিক তলিয়ে দেখলে এর মূল ইন্ধনদাতা রাজনৈতিক শক্তি/আস্কারাটির রসুনের গোঁড়া অভিন্ন।

খবরে প্রকাশ, রামুর বৌদ্ধ জনপদে হামলায় জোরালো ও মূল ভূমিকা রাখে জামায়াতে ইসলামী। তারা কৌশলে ব্যবহার করে বিএনপি ও আওয়ামী লীগের নেতা-কর্মীদের। আর ওই তাণ্ডব চালাতে টাকাপয়সার জোগান দেয় রোহিঙ্গাদের সংগঠন আরএসওসহ কয়েকটি এনজিও।

Wednesday, October 10, 2012

রাগিব হাসানের আলোর ইস্কুল

সহ-ব্লগার রাগিব হাসান সর্ম্পকে নতুন করে তেমন কিছু বলার নেই। বাংলাদেশের গৌরব ড. রাগিব হাসান পেশায় একজন কম্পিউটার বিজ্ঞানী। তিনি ইউনিভার্সিটি অব আলাবামা অ্যাট বার্মিংহামের কম্পিউটার বিজ্ঞান বিভাগে সহকারী অধ্যাপক পদে কর্মরত। তাঁর গবেষণার বিষয় কম্পিউটার নিরাপত্তা ও ক্লাউড কম্পিউটিং। ২০০৬ সাল থেকে তিনি বাংলা উইকিপিডিয়াতে কাজ করছেন।

সম্প্রতি তারই উদ্যোগে আন্তর্জালে ছড়িয়ে পড়েছে বাংলা ভাষায় জ্ঞান-বিজ্ঞানের আলো। বিজ্ঞানের শিক্ষার্থী মাত্রই জানেন, উচ্চতর জ্ঞান-বিজ্ঞানের নানা শাখায় বাংলা ভাষায় বইপত্রের বেশ অভাব, কিছু ক্ষেত্রে প্রায়ই তা ইংরেজি বইয়ের হুবহু অনুবাদ। খটমটে অনুবাদের এসব বই শিক্ষার্থীর জ্ঞানতৃষ্ণা মেটানোর বদলে অনেক সময়ই বিজ্ঞানকে করে তোলো আরো ভীতিকর। আবার আন্তর্জালে প্রকাশিত বিজ্ঞানের নানা তথ্য ও জার্নাল অধিকাংশই বিদেশি ভাষায়। বিভিন্ন কঠিন অভিধা এবং জটিল তথ্য-উপাত্তে সেসব প্রায়শই শিক্ষার্থী-গবেষকদের কাছে দুর্বোধ্য ঠেকে। অনেক ক্ষেত্রে নথিপত্র, তথ্য-উপাত্ত আন্তর্জাল থেকে সংগ্রহ করতে আগ্রহীদের ক্রেডিট কার্ডে গুনতে হয় মোটা অঙ্কের অর্থ।

Monday, August 27, 2012

চলেশ রিছিল: লাল সেলাম

[বাবা পড়ে আছে মর্গে / লালমোহনের মেয়ের মাধ্যমিক /পরীক্ষা দিয়ে শিক্ষিত করগে /'এনকাউন্টার' হলো কী বাস্তবিক?...সুমন কবিরের গান]

পাহাড়ি আদিবাসী নেত্রী কল্পনা চাকমার মতোই চলেশ রিছিল এখন টাঙ্গাইলের মধুপুরের গারো ও কোচ আদিবাসী অধ্যুষিত শালবনের অমিংমাসিত অধ্যায়।

বছর আটেক আগে মধুপুরের শালবন গর্জে উঠেছিলো বন বিভাগের একতরফা ইকো-পার্ক প্রকল্পের বিরুদ্ধে। সে সময় আদিবাসী নেতা চলেশ রিছিল আদিবাসীদের সংগঠিত করেন ইকো-পার্ক প্রতিরোধ আন্দোলন।

এ জন্য পাঁচ বছর আগে যৌথবাহিনীর ‘এনকাউন্টারে’ জীবন দিতে হয় তাকে। আন্দোলনের সময়ই পুলিশ ও বনরক্ষীদের গুলিতে প্রাণ যায় পিরেন স্নাল নামক আরেক আদিবাসী নেতার। পিরেনের রক্তের বিনিময়ে সে সময় বাতিল হয় ইকো পার্ক প্রকল্প। কিন্তু বাতিল এ প্রকল্পের বন মামলার দায় এখনো বহন করে চলেছেন মৃত চলেশ। এ মামলায় ‘গরহাজির’ থাকায় সম্প্রতি আদালত তাঁর বিরুদ্ধে সমনও জারি করেছেন!


Thursday, August 9, 2012

বন মামলায় সংকুচিত আদিবাসীদের জীবন

বিপ্লব রহমান, মধুপুর (টাঙ্গাইল) থেকে ফিরে
মরেও মুক্তি নেই আদিবাসী নেতা চলেশ রিছিলের। মৃত্যুর পাঁচ বছর পরও তাঁর বিরুদ্ধে এখনো বহাল বন বিভাগের দায়ের করা মামলা! চলেশ রিছিল আট বছর আগে গারো আদিবাসীদের মধুপুর ইকো পার্ক প্রতিরোধ আন্দোলন সংগঠিত করেছিলেন। এ কারণে সে সময় মধুপুর বন কর্তৃপক্ষ তাঁর বিরুদ্ধে মামলা করে। এ মামলায় 'গরহাজির' থাকায় কিছুদিন আগে আদালত তাঁর বিরুদ্ধে সমনও জারি করেছেন।
মধুপুরের শত শত গারো আদিবাসী নারী-পুরুষের রয়েছে একই রকম আরো প্রায় পাঁচ হাজার মামলা। বছরের পর বছর ধরে এসব মামলার দুর্ভোগে এখন তাঁদের নাভিশ্বাস ওঠার উপক্রম।

Wednesday, May 23, 2012

আমাদের শিশুরা কী পড়ছে?


০১. প্রশ্নটি প্রথম তোলেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক কাবেরী গায়েন। গুমট গরমের পর বিকেলে এক ঝলক স্বস্তির বৃষ্টির সময় কাবেরী আপা মনে করিয়ে দেন শৈশবের সেই মায়াময় শিশুপাঠ:



বৃষ্টি পড়ে টাপুর টুপুর
নদেয় এলো বান
শিব ঠাকুরের বিয়ে হবে
তিন কন্যা দান। এক কন্যা রাঁধে-বাড়ে
আরেক কন্যা খায়
আরেক কন্যা গাল ফুলিয়ে
বাপের বাড়ি যায়।

Monday, May 14, 2012

একেই বলে সাংবাদিকতা?


পাহাড়, অরণ্য, ঝর্ণা, ধারায় আপাত নয়নাভিরাম পার্বত্য চট্টগ্রাম সর্ম্পকে যারাই ওয়াকিবহাল, তারাই জানেন, প্রাকৃতিক শোভার স্বর্গভূমি পাহাড়ের রয়েছে অন্য আরেক বেদনা বিধুর রূপ।

শান্তিচুক্তির আগে অন্তত ১৩টি বড় ধরণের গণহত্যা হয়েছে সেখানে। লোগাং, লংগদু, নানিয়ারচর, বরকল, মাইচছড়ি, পানছড়ি, দীঘিনালা, কাউখালিসহ একের পর এক গণহত্যায় বরাবরই অকাতরে জীবন দিয়েছেন নিরস্ত্র আদিবাসী পাহাড়িরা। 

সাবেক গেরিলা গ্রুপ শান্তিবাহিনীর বিদ্রোহ দমনের নামে সেনা বাহিনীর এসব নিধনযজ্ঞের অপারেশনে বরাবরই সহযোগির ভূমিকা নিয়েছে পাহাড়ে অভিবাসিত বাঙালি সেটেলাররা। কখনো কখনো সেটেলাররাই গণহত্যার নেতৃত্বও দিয়েছে; তাদের প্রত্যক্ষ মদদদাতা হিসেবে কাজ করেছে সেনা বাহিনী। মেশিনগানের বুলেট আর ধারালো দায়ের কোপে ইতি ঘটেছে হাজারো জীবনের। [লিংক]

Tuesday, April 24, 2012

খাসিয়া পাহাড় চিত্র।। ফটো ব্লগ।।

খাসি বা খাসিয়া আদিবাসী জীবন পান চাষ নির্ভর। শ্রীমঙ্গলের আসাম সীমান্তের খাসি-হিলে দেখা মেলে এমন নিবিড় পান জুমের। খাসিয়া গ্রাম বা পুঞ্জিগুলো পাহাড়ের ওপর অরণ্য ঘেরা। এই প্রাকৃতিক অরণ্যই খাসিয়াদের জীবন। সেখানের বড় গাছগুলোকে আশ্রয় করে বেড়ে ওঠে পান লতা। সমতলের পান চাষের চেয়ে খাসিয়া পান চাষ তাই ভিন্ন প্রকৃতির। এই পদ্ধতির পান চাষকে বলে 'পান জুম'। পান জুমের পাতাগুলো আকারে ছোট, এগুলো বেশ ঝাঁঝালো স্বাদের। দেশ-বিদেশে পান-প্রিয়দের কাছে খাসিয়া পান পাতার বিশেষ কদর রয়েছে।

Sunday, April 22, 2012

সুসমাচার।। সাঁওতালি ভাষার উইকি জয়।।


ইন্টারনেটভিত্তিক মুক্ত বিশ্বকোষ উইকিপিডিয়া, সংক্ষেপে– উইকিতে যুক্ত হয়েছে সাঁওতালি ভাষা। বাংলা ও বিষ্ণুপ্রিয়া মণিপুরি ভাষার পর এটি বাংলাদেশের তৃতীয় কোনো ভাষা, যা উইকিতে যুক্ত হলো। এতে সাঁওতালি ভাষার শিক্ষার্থী ও আগ্রহীদের জন্য তো বটেই, আদিবাসী বিষয়ক গবেষণার ক্ষেত্রে উন্মুক্ত হলো অবাধ সুযোগ। উইকিতে বিশ্বের ২৭২টি প্রান্তিক জনগোষ্ঠীর ভাষা অন্তর্ভূক্ত হয়েছে।



সাঁওতালি উইকিপিডিয়ানরা আরো জানান, এ ভাষায় বিভিন্ন তথ্য অনুবাদ করে তা উইকিতে যোগ করার ক্ষেত্রে প্রায়ই তাদের সাঁওতালি ভাষার অভিধানের সংকটের মুখোমুখি হতে হয়েছে। শিক্ষার্থী ও গবেষকদের যেন সাঁওতালি অভিধান দুষ্প্রাপ্যতায় ভুগতে না হয়, সে চিন্তা থেকে তাঁরা সাঁওতালি উইকিতে ইংরেজি-সাঁওতাল ভাষার অভিধান ই-বুক আকারে যুক্ত করতে যাচ্ছেন। আগ্রহী যে কেউ বিনা মূল্যে পিডিএফ আকারে সাঁওতালি অভিধানটি ডাউনলোড করে নিতে পারবেন।

Sunday, April 15, 2012

ব্লগ ব্ল্যাক আউট অথবা একটি করপোরেট কচকচানি


বাঙালি মাত্রই তার পরম শ্রদ্ধার মানুষ --মা। এটি শ্বাশত বাংলার সংস্কৃতি। তাই বাংলাদেশ নামক প্রিয় দেশটি মাতৃভূমি, পিতৃভূমি নয়; এখানে মা আর দেশ মিশে যান পরম শ্রদ্ধায়, ভালবাসায়, প্রায় সমর্থক আবেগ নিয়ে।

বাজার অর্থনীতিতে নাকি সব কিছুই পন্য, এমনকি মাতৃভক্তি, দেশপ্রেমও। করপোরেট যুগে এটি সত্যি তো বটেই।

Saturday, March 24, 2012

অপারেশন সার্চলাইট: পাক সামরিক জান্তার বেতার বার্তা


১৯৭১ সালের ২৫ মার্চ। তৎকালীন পূর্ব পাকিস্তানের রাজধানী ঢাকায় কারফিউ জারি করে মধ্যরাতে পাকিস্তানি সামরিক জান্তা যে নারকীয় হত্যাযজ্ঞ চালায়, তার আনুষ্ঠানিক নাম ছিলো 'অপারেশন সার্চলাইট'। এটি ছিল মুক্তিযুদ্ধের প্রথম প্রহরে বাঙালির স্বাধীনতার আন্দোলনকে হত্যাযজ্ঞে স্তব্ধ করে দেওয়ার এক নীলনকশা।

Thursday, March 1, 2012

পাজল


এতটা বয়স পেরিয়ে এলাম, তবু কি জানলাম, চড়ুইয়ের ঠোঁটে কেনো এতো তৃষ্ণা...

খুব ছোট বেলায় একবার দাদুবাড়িতে বেড়াতে গিয়েছি। তখন আমার বয়স কত আর হবে, ধরা যাক, ছয় কি সাত। দাদু বাড়ি হচ্ছে সিরাজগজ্ঞের এক প্রত্যন্ত গ্রামে। তিনি ছিলেন ব্রিটিশের এক জাঁদরেল দারোগা। তার বাড়িটা খুব সুন্দর, একবারে ব্রিটিশ আমলের লাল ইটের খিলান করা একতলা পাকাবাড়ি। বাড়ির সামনে দিগন্তজোড়া সর্ষে ফুলের ক্ষেত।

Monday, February 13, 2012

শিরোনামহীন

 
আপনাকে নিয়ে আমি কী লিখতে পারি? কী লেখা উচিৎ? আপনাকে নিয়ে লিখতে গিয়ে টিভিতে দেখা সাগর-রুনি সাংবাদিক দম্পতি হত্যাকাণ্ডের রোমহর্ষক বর্ণনা আমার চোখের সামনে একে একে সিনেমার স্লাইডের মতো ভেসে উঠছে। কম্পিউটার-কি বোর্ড স্লথ থেকে স্লথতর হয়ে আসছে।...

Tuesday, February 7, 2012

একটি ক্লান্ত পাখির কথা...



ফুন্দরি রাঙা ঝুরবো ফেগ/ তম্মা মইলে মুই ইদু এজ...চাকমা ছড়া...রাঙা লেজের ক্লান্ত পাখি/ তোমার মা মারা গেলে আমার কাছে এসো...
রক্তাক্ত এই আদিবাসী মেয়েটিকে চিনতে পারেন? গত বছর রামগড় সংঘর্ষের সময় পাহাড়ে অভিবাসিত বাঙালি সেটেলারদের সংঘবদ্ধ হামলায় কিশোরিটি গুরুতর আহত ও নিখোঁজ হয়।

বলা ভাল, খাগড়াছড়ির রামগড়ে জমি নিয়ে বিরোধের জের ধরে গত বছর ১৭ এপ্রিল পাহাড়ি-বাঙালি সংঘর্ষ হয়। এতে তিনজন বাঙালি সেটেলার নিহত হন। পুড়িয়ে দেওয়া হয় পাহাড়ি ও বাঙালি সেটেলারদের অনেক বাড়ি।

Tuesday, January 10, 2012

সীতাকুণ্ডের পাহাড়ে এখনো শ্রমদাস!

 
"সেই ব্রিটিশ আমল থেকে আমরা অন্যের জমিতে প্রতিদিন বাধ্যতামূলকভাবে মজুরি (শ্রম) দিয়ে আসছি। কেউ মজুরি দিতে না পারলে তার বদলে গ্রামের অন্য কোনো নারী-পুরুষকে মজুরি দিতে হয়। নইলে জরিমানা বা শাস্তির ভয় আছে। তবে সবচেয়ে বেশি ভয় যেকোনো সময় জমি থেকে উচ্ছেদ হওয়ার।"

Saturday, January 7, 2012

নিধনযজ্ঞে বৃক্ষশূন্য খাসিয়া পাহাড়


বিপ্লব রহমান, শ্রীমঙ্গল থেকে ফিরে
মৌলভীবাজারের শ্রীমঙ্গল। অন্য অনেক বিষয়ের পাশাপাশি বৃক্ষশোভিত পাহাড়শ্রেণী এর বড় একটা গর্বের বিষয় ছিল। কিন্তু পাহাড়গুলো আজ সৌন্দর্যহীন। চা বাগান কর্তৃপক্ষের হাতে কাটা পড়েছে এখানকার প্রায় সাড়ে তিন হাজার গাছ। বেপরোয়া গাছ কাটার ফলে শ্রীমঙ্গলের খাসিয়া পাহাড় আজ বৃক্ষশূন্য। বিপন্ন হয়ে পড়েছে ভাষাগত সংখ্যালঘু খাসিয়া জনজাতির দুটি গ্রাম। হুমকির মুখে পড়েছে খাসিয়া জনপদের জীবন-জীবিকা। মানববন্ধন, প্রশাসনে ধরনা-কোনো কিছুতেই ফল হয়নি। প্রতিটি মুহূর্ত উচ্ছেদ আতঙ্ক তাদের তাড়া করে ফিরছে।