Thursday, February 6, 2014

একুশের সংবাদ: আমাদের বিশ্বকোষ


শিক্ষা-দীক্ষা বা গবেষণায় মাতৃভাষায় জ্ঞানচর্চার বিকল্প নেই। অমর একুশের গৌরবের অগ্রযাত্রায় এখন হাতের নাগালে ইন্টারনেটভিত্তিক মুক্ত বিশ্বকোষ বাংলা উইকিপিডিয়া [http://bn.wikipedia.org/, সংক্ষেপে বাংলা উইকি। বছর কয়েক আগেও যেখানে শিক্ষার্থী ও গবেষকদের প্রয়োজনীয় বিষয়ে জ্ঞানচর্চার জন্য কিনতে হতো বিদেশি ভাষার দামি বিশ্বকোষ অথবা ধরনা দিতে হতো বিভিন্ন লাইব্রেরিতে, এখন সেখানে যে কেউ কম্পিউটার বা মোবাইল ফোনের বোতাম টিপেই বিনা মূল্যে পেতে পারেন নির্ভরযোগ্য তথ্য ও ছবি। প্রয়োজনমতো তথ্য ও ছবি ডাউনলোড করে সংরক্ষণ এবং প্রিন্ট আউটও নেওয়া যায়। কিছুদিন আগে বাংলা উইকির মোবাইল ভার্সন [http://bn.wikipedia.org/] চালু হওয়ায় কমদামি মোবাইল ফোনেও এটি এখন সহজলভ্য। 

বলা ভালো, উইকির মতো বাংলা উইকিও পরিচালিত হচ্ছে সম্পূর্ণ স্বেচ্ছাশ্রমে। সাইটটি সমৃদ্ধ করার জন্য দিনরাত পরিশ্রম করে চলেছেন সারা বিশ্বের বাংলা ভাষাভাষী অসংখ্য উইকিপিডিয়ান। এরই মধ্যে বাংলা উইকি পূর্ণ করতে চলেছে অর্জনের এক দশক। সমগ্র উইকিপিডিয়ায় যুক্ত হওয়া বিশ্বের ২৮৫টি ভাষার মধ্যে এভাবেই বাংলার এখন দাপুটে পদচারণ।


বাংলা উইকিপিডিয়ার [http://bn.wikipedia.org/] যাত্রা শুরু ২০০৪ সালে। সেই থেকে ঘটছে এর উত্তরোত্তর সমৃদ্ধি। চলতি বছর বাংলা উইকির পূর্তি হবে ১০ বছর। প্রায় এক দশকের পথচলায় এটি পরিণত হয়েছে বাংলা ভাষায় বিশ্বের সবচেয়ে বড় তথ্যভাণ্ডার। পাশাপাশি ইন্টারনেটের সবচেয়ে বড় বাংলা ওয়েবসাইটও। বাংলা উইকির আকার এখন এশিয়াটিক সোসাইটি প্রকাশিত বাংলাপিডিয়ার থেকেও কয়েক গুণ বেশি বড়। অন্য যেকোনো সময়ের তুলনায় বাংলা উইকি এখন অনেক সমৃদ্ধিশালী। ২০১২ সালে এই সাইটে নিবন্ধ সংখ্যা ছিল প্রায় ২৪ হাজার। আর এখন সাইটটিতে মোট নিবন্ধের সংখ্যা ২৮ হাজার ছাড়িয়েছে। পাশাপাশি এতে যুক্ত হয়েছে বিভিন্ন বিষয়ভিত্তিক ও বৈচিত্র্যপূর্ণ হাজার হাজার ছবি। আগের তুলনায় এর ব্যবহার বেড়েছে ৪৬ শতাংশ। এ ছাড়া উপমহাদেশের প্রধান ভাষার উইকির মধ্যে এর অবস্থান এখন সম্ভবত সর্বোচ্চ স্থানে।


বাংলা উইকির অন্যতম উদ্যোক্তা ইউনিভার্সিটি অব আলাবামা অ্যাট বার্মিংহামের কম্পিউটার বিজ্ঞান বিভাগের সহকারী অধ্যাপক ড. রাগিব হাসান। কালের কণ্ঠকে তিনি বলেন, ‘বাংলা উইকির নেপথ্যে রয়েছে এক দল বাংলাভাষী তরুণ-তরুণীর প্রায় ১০ বছরের অক্লান্ত পরিশ্রম। সবার সমবেত প্রয়াসে সাইটটি আজ এত দূর এসেছে।’ তিনি বলেন, ‘আসলে উইকিপিডিয়া হলো জনমানুষের তৈরি, জনমানুষের জন্য লেখা বিশ্বকোষ। সবার সমবেত প্রয়াস এবং চেষ্টায় বাংলা উইকি এগোবে সামনের দিকে, এটিই আমার বিশ্বাস।’

উইকিপিডিয়ার বাংলাদেশ চ্যাপ্টারের কোষাধ্যক্ষ ও নির্বাহী পরিষদ সদস্য আলী হায়দার খান বাংলা উইকির দশকপূর্তিতে তাদের নানা পরিকল্পনার কথা জানান। তিনি বলেন, ‘এখন বাংলা উইকিতে অনেক নতুন অবদানকারী যুক্ত হয়েছেন। প্রতি মাসে প্রায় পাঁচ শ নতুন নিবন্ধ এতে যোগ হচ্ছে। আমরা উইকিপিডিয়া বাংলাদেশের পক্ষে চলতি বছর থেকে জোরদার প্রচার-প্রচারণা শুরু করব। আয়োজন করা হবে কর্মশালা, সেমিনার ও প্রতিযোগিতা। এতে অনেক বেশিসংখ্যক মানুষ বাংলা উইকি সম্পর্কে জানতে পারবে। পাশাপাশি বাড়বে এর ব্যবহার। স্বেচ্ছাশ্রমে সাইটটিতে অবদানকারীদের অংশগ্রহণও বাড়বে।’

উইকিপিডিয়ান আলী হায়দার খান বলেন, ‘এ পর্যন্ত বাংলা উইকির যতটুকু অগ্রগতি হয়েছে, তাতে আমরা সন্তুষ্ট নই। আমরা চাই একে বিশ্বের সবচেয়ে বড় ১০টি উইকির কাতারে নিয়ে আসতে। এ ছাড়া এই জ্ঞানভাণ্ডারকে আমরা ছড়িয়ে দিতে চাই দেশের সব স্কুল-কলেজ-বিশ্ববিদ্যালয়, শহর-গ্রামে তো বটেই, এমনকি আমরা পৌঁছাতে চাই সারা বিশ্বের সব বাংলা ভাষাভাষী মানুষের নাগালে। এককথায়, অদূর ভবিষ্যতে সর্বস্তরে বাংলা ভাষায় জ্ঞানচর্চায় বাংলা উইকি হবে একটি অন্যতম মাধ্যম, এটিই আমাদের চাওয়া।’

- See more at: http://www.kalerkantho.com/print-edition/first-page/2014/02/06/49128#sthash.f19CALOT.dpuf